উত্তরাঞ্চল অভিযান; রংপুর, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও ও নীলফামারী ভ্রমণ

বাংলাদেশ দেখার মিশনে অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছি, আরো বেশ খানিকটা পথ পাড়ি দিতে হবে। ২০১৯ সালে জুনের ১৭ বা ১৮ তারিখ, ২জন বসে ভাবছি অল্প টাকায় একটা বড় ট্যুর দেয়া যায় কি না! মাথায় এলো উত্তরাঞ্চলের কথা। ২ ছোট ভাই আছে যার একজন বেরোবিতে আর একজন হাজী দানেশে পড়ে। ১৯ তারিখ সকালে তাদের ফোন দিয়েই বেরিয়ে পড়লাম। রংপুর দিয়ে ট্যুর শুরু আর নীলফামারী দিয়ে শেষ করার পরিকল্পনা করলাম।
ঢাকা থেকে যেভাবে আসবেন:
আমরা বগুড়া থেকে গিয়েছিলাম। ৫ জনের একটা ছোট গ্রুপ ছিল আমাদের। তবে আপনি ঢাকা থেকে আসতে চাইলে সহজেই আসতে পারবেন। ঢাকা থেকে রংপুরের দুরত্ব প্রায় ৩০০ কিলোমিটার। শ্যামলী, ডিপজল, হানিফ সহ অনেক পরিবহন কোম্পানির বাস এ রুটে চলাচল করে। আসতে সময় লাগবে ৬-৭ ঘন্টা। ট্রেনেও আসতে পারবেন, তবে বাসের চেয়ে সময় একটু বেশী লাগবে। চাইলে বিমানেও আসতে পারবেন, নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দরে নামতে হবে।
ভ্রমণ যাত্রা: বগুড়া ৪ মাথা আন্ত:জেলা বাস টার্মিনাল থেকে ঢাকা থেকে আসা ডিপজল পরিবহনের গাড়ীতে উঠলাম সন্ধ্যা ৬টায়। ভাড়া নিল ১০০ টাকা। নামলাম রংপুরের মডার্ন মোড়ে। ছোট ভাই ফিরোজ এসে আমাদের তার মেসে নিয়ে গেল, বিশ্রাম নিয়ে ফ্রেশ হয়ে রাতের খাবার শেষে হাটলাম বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। বেশ রাতে রুমে ফিরে ঘুম।

FB_IMG_1588852035029

সকালে ঘুম থেকে উঠেই রওনা দিলাম তাজহাট জমিদার বাড়ির দিকে। অটোরিক্সা রিজার্ভ নিলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে থেকে। আসা যাওয়া ভাড়া পড়েছিল জনপ্রতি ২০ টাকা। এই তাজহাট জমিদারবাড়ি একসময় হাইকোর্টের উত্তরাঞ্চল বেঞ্চ হিসেবে ব্যবহৃত হতো।

FB_IMG_1588853685394

বর্তমানে এটা প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সম্পদ এবং এখানে রংপুর যাদুঘর অবস্থিত। জমিদার বাড়িটিকে বিভিন্ন ফুল ও ফলের গাছে শোভিত করা হয়েছে।

FB_IMG_1588852070381

সেখান থেকে রংপুর শহরের বাইরের একটি পিকনিক স্পট দেখতে গেলাম। ভিন্নজগৎ বিনোদন পার্ক। রংপুরের পাগলাপীর হয়ে যেতে হয়, নিতে হবে অটোরিক্সা রিজার্ভ। উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজ থেকে এখানে প্রতিবছর শিক্ষাসফরে আসে শিক্ষার্থীরা। এখানকার বিশেষ আকর্ষন কৃত্রিম সৌরজগত, আছে সুইমিং পুল সহ বিভিন্ন আধুনিক সুযোগ সুবিধা। বিশাল এলাকা জুড়ে তৈরী করা এ বিনোদন কেন্দ্রটিতে একসাথে ৫০০ টি পর্যন্ত গ্রুপের পিকনিক আয়োজন করা সম্ভব। সেখান থেকে শহরে এসে কারমাইকেল কলেজ ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস হয়ে ফিরলাম মেসে। আসার সময় ফিরোজ যে জিলাপিটা খাওয়ায় ছিলো তা ভোলার নয়!

FB_IMG_1588851975972

বিকেলেই রওনা দিলাম দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে। রংপুর থেকে দিনাজপুর বাস ভাড়া ১০০ টাকা। রাত আটটা নাগাদ হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌছালাম। রাতের খাবার শেষে মাঝরাত পর্যন্ত শিহাবের তাজউদ্দিন আহমদ হলের ছাদে আড্ডা দিতে দিতে পরের দিনের ট্যুর প্লান করে ফেললাম। সকালেই রওনা হলাম পঞ্চগড়ের উদ্দেশ্যে। দিনাজপুর-পঞ্চগড় পর্যন্ত বাস ভাড়াটা মনে নেই। পঞ্চগড় শহরে নেমেই আরেকটি বাস ধরে তেঁতুলিয়া পৌছালাম।

FB_IMG_1588852295955

সেখান থেকে বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট। চলার পথে দেখলাম সমতলের চা চাষ, রাস্তার দুইপাশে সারিসারি অনেক চা বাগান। বিজিবি কর্মকর্তা আসায় সীমান্তের দিকে যেতে একটু দেরি করতে বললো ডিউটিরত এক বিজিবি জওয়ান। এই সুযোগে দুপুরের খাবারটা খেয়ে নিলাম।

FB_IMG_1588852245572

বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট আসলে কোন পর্যটন এলাকা নয়। এটা দেশের সর্ব উত্তরের ভূখন্ড। বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিন ভারত, নেপাল, ভুটান থেকে বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী আমদানি করা হয় এবং প্লাস্টিক ও ঔষধ সামগ্রী রপ্তানি করা হয়।

FB_IMG_1588852327764

এ বন্দর দিয়ে সবচেয়ে বেশি আমদানি হয় পাথর, প্রতিদিন অসংখ্য ট্রাকে করে পাথর আসে ভারত থেকে। পাথরকে কেন্দ্র করে বিশাল কর্মযজ্ঞ চোখে পড়বে আপনার, অনেক শ্রমিক কাজ করছে এখানে। এখানে ইমিগ্রেশন পয়েন্টও রয়েছে।

FB_IMG_1588852319651

পঞ্চগড় শহরে এসে একটু ঘুরেফিরে ছুটলাম ঠাকুরগাঁও শহরের দিকে, উদ্দেশ্য দেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও বড় আম গাছ দর্শন। ঠাকুরগাঁও শহর থেকে লোকাল বাস ধরে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা সদরে যখন পৌছালাম তখন সূর্য ডুবতে আর আধ-ঘন্টার মতো বাকি আছে। নেমেই তাড়াহুড়ো করে অটোরিক্সা রিজার্ভ করে রওনা দিলাম হরিণমারী গ্রামের দিকে। সীমান্ত ঘেঁষা গ্রাম হরিণমারী, এখানেই দেশের সবচেয়ে প্রাচীন আমগাছটি দণ্ডায়মান।

FB_IMG_1588852109816

যতক্ষণে ২০ টাকার টিকেট কেটে ভিতরে ঢুকলাম ততক্ষণে মাগরিবের আযান হয়ে গেছে। আলো-ছায়াতে দেখলাম আমগাছ সহ চারপাশ। ছবি উঠলাম কিন্তু অস্পষ্ট! বলা হয় আমগাছটি ২০০ বছরের পুরাতন এবং তিন বিঘা জমি জুড়ে এর ব্যাপ্তি। আমাদের আন্দাজে ২৫-৩০ শতাংশ জমির উপর এর ব্যাপ্তি। যাহোক গাছটি অনেক বড়, এর ডালগুলো অনেক মোটা হয়ে মাটি বেয়ে আবার নতুন একটি গাছের মতো উপরে উঠে গেছে।

FB_IMG_1588852101606

সেখান থেকে ফিরলাম বালিয়াডাঙ্গী সদরে, সন্ধ্যার নাস্তা সেরে ঢাকাগামী বাসে করে এসে নামলাম দিনাজপুরের দশমাইল নামক স্থানে, তারপর হাবিপ্রবিতে।

FB_IMG_1588852166651

রাতে ক্যাম্পাসে আড্ডা, ঘোরাঘুরি করে ঘুম। পরদিন খুব ভোরে উঠে রওনা হলাম দশমাইলের দিকে। উদ্দেশ্য কান্তজিও মন্দির ও নয়াবাদ মসজিদ দেখা। দশমাইল থেকে অটোরিক্সা রিজার্ভ নিয়ে গেলাম কান্তজিও মন্দিরে। দশমাইল থেকে ১৫-২০ মিনিটের পথ। এই মন্দিরটি দেশের অন্যতম পুরাতন মন্দির।

FB_IMG_1588852214580

১৭৫২ সালে মহারাজা প্রাণনাথ ও তার পোষ্যপুত্র রামনাথ কর্তৃক মন্দিরটি নির্মিত হয়। দুইবার বড় ভূমিকম্পে হ্রাস পেয়েছে মন্দিরটির উচ্চতা। মধ্যপ্রাচ্যের স্থাপত্যবিদরা এর নকশা প্রস্তুতকারী ও নির্মাতা। প্রতিবছর এখানে মেলা বসে, সে সময় দেশী বিদেশী পূর্ণার্থীর ঢল নামে কান্তজিও মন্দিরে। কান্তজিও মন্দির থেকে ঐতিহাসিক নয়াবাদ মসজিদটি অটোরিক্সা যোগে দশ মিনিটের দূরত্বে এবং দিনাজপুর শহর থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ধারনা করা হয় কান্তজিও মন্দির নির্মান করতে আসা মুসলিম স্থাপত্যশিল্পীরা নিজেরা নামাজ পড়ার জন্য মসজিদটি নির্মান করেন, তবে এ নিয়ে দ্বিমত রয়েছে স্থানীয়দের মাঝে।

FB_IMG_1588852204368

মসজিদের গায়ে স্থাপিত শিলালিপি থেকে জানা যায় মসজিদটি ১৭৯৩ সালে নির্মিত। নয়াবাদ মসজিদ ও কান্তজিও মন্দির দুটিই বর্তমানে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণাধীন। ঐতিহাসিক স্থাপনা দুটি দিনাজপুর জেলার কাহারোল উপজেলায় অবস্থিত। সেখান থেকে রিজার্ভ অটোতেই ফিরলাম দশমাইল। দিনাজপুরের জনপ্রিয় পিকনিক স্পট স্বপ্নপূরী। তবে এখানে দুইবার গিয়েছিলাম তাই আবার যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না! দশমাইল থেকে রংপুরের বাস ধরে সৈয়দপুর উপজেলা শহরে নামলাম। এখানে দর্শন করলাম সৈয়দপুর রেলওয়ে জংশন ও সৈয়দপুর বিমানবন্দর। তবে আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল চিনি মসজিদ দেখা।

FB_IMG_1588852370077

ঐতিহাসিক চিনি মসজিদটি রেলওয়ে স্টেশনের নিকটেই। দেয়ালের গায়ে চীনা মাটির প্লেটের ভগ্নাংশ ব্যবহৃত হয়েছে বলে মসজিদটি চিনি মসজিদ নামে পরিচিত পেয়েছে।

FB_IMG_1588852381853

সৈয়দপুরে বিরাট সংখ্যার বিহারী ও অবাঙালীদের বসবাস রয়েছে। সৈয়দপুর অনেক বড় একটা শহর। আমার দেখা সবচেয়ে বড় উপজেলা শহর, কোন কোন জেলা শহরকেও ছাড়িয়ে যাবে এ শহর। সময় স্বল্পতার কারনে তিস্তা ব্যারেজ দেখা সম্ভব হয়নি। তখন বিকেল, রওনা হলাম রংপুরের দিকে। রংপুর থেকে বগুড়া পৌছালাম রাত ১১টার দিকে। ছোট বাজেটের দীর্ঘ জার্নির এক বড় ট্যুরের সমাপ্তি ঘটলো। আরো একবার যাব উত্তরাঞ্চল, দেখবো গাইবান্ধা, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রামের রুপ।
থাকা-খাওয়া: যেসব জেলার বর্ণনা দিলাম এর কোন জেলাতেই আপনাকে রাতে থাকতে বা খেতে অসুবিধায় পড়তে হবে না। ৫০০-৫,০০০ টাকার মধ্যে মাঝারী থেকে উন্নতমানের অসংখ্য হোটেল পাবেন রাত্রিযাপনের জন্য। রংপুর বিভাগের একমাত্র ফাইভ স্টার হোটেল রংপুরে অবস্থিত। আঞ্চলিক খাবারগুলো খেতে ভুলবেন না! খাবারের দাম কমই।
সৈয়দপুর-ঢাকা: পঞ্চগড়, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁওয়ের বাসগুলো সৈয়দপুর হয়েই ঢাকা যায়। ঢাকায় ফিরতে বাস সংক্রান্ত কোন সমস্যা আপনাকে পড়তে হবে না। চাইলে ট্রেনেও ঢাকায় ফিরতে পারবেন। রয়েছে বিমান সুবিধা।
কিছু জরুরী কথা:
১. ছুঁটির দিন ও মৌসুম এড়িয়ে আসলে খরচ অনেকটাই কমানো সম্ভব।
২. স্থানীয়দের সাথে ভালো আচরণ করুন। তারা অনেক ভালো মনের মানুষ ও সাহায্যকারী।
৩. কোন সমস্যায় পড়লে পুলিশ কিংবা প্রশাসনের সহযোগীতা নিন। তারা সদা প্রস্তুত সহযোগীতা করতে।
৪. অনুনোমদিত কোন জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করবেন না।
৫. পরিবেশ পরিস্কার রাখুন, মনে রাখবেন একজন প্রকৃত পর্যটক ও প্রকৃতি প্রেমী কখনো পরিবেশের ক্ষতি করতে পারে না।
৬. স্যালাইন, প্যারাসিটামল, গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ, স্যাভলন সাথে রাখবেন।
৭. সীমান্তবর্তী এলাকায় আিন মেনে চলুন, বেআইনী কাজ করে বিপদ ডেকে আনবেন না।
ধৈর্য্য নিয়ে পড়ার জন্য ধন্যবাদ। নিজে ভালো থাকুন, প্রাণের দেশটাকে ভালো রাখুন। আল্লাহ হাফেজ।

আলমগীর হোসেন, ০৭.০৫.২০২০ খ্রিষ্টাব্দ

রাঙ্গামাটির দর্শনীয় স্থান

পাহাড়ের মায়াবি সৌন্দর্য নিয়ে নতুন করে কিছুই বলার নাই! বাংলাদেশ দেখার মিশনে অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছি, এবার স্থির করলাম পাহাড়ে যাব। শুধু পাহাড় দেখবো আর ঘুরে বেড়াবো! গ্রুপের একজন বললো তাহলে কেওক্রাডং যাওয়া যাক, জায়গাটা আমার মাথাতেও ঘুরপাক খাচ্ছে কিছুদিন যাবৎ, কিন্তু কাউকে বলছিলাম না দুর্গম আর ব্যয়বহুল ট্যুর হবে মনে করে! লুফে নিলাম প্রস্তাব। এখানে কেওক্রাডং অভিযানের কথা উল্লেখ করলাম কারন আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল বগালেক ও কেওক্রাডং পর্বত অভিযান। আমি এ পর্বে রাঙ্গামাটি শহর ও এর আশেপাশের সুন্দর স্পটগুলো নিয়ে আলোচনা করবো। আমরা বান্দরবান ঘুরে এসে রাঙ্গামাটি শহর ও এর আশেপাশের দর্শণীয় স্পটগুলো দেখে ঢাকায় ফিরেছি। বান্দরবান ও কেওক্রাডং নিয়ে আমার আরো লেখা আছে। যাহোক প্রতিবারের মতো অনেকের ট্যুরমেট হওয়ার কথা থাকলেও এবারও বেশীরভাগই কেটে পড়েছে! শেষমেশ ৬ জনের টিকিট কাটতে পারলাম। ঢাকা থেকে রওনা হয়েছিলাম ৫ মার্চ ২০২০ রাতে। চলুন বিস্তারিত গল্প শুরু করি!
কি কি দেখেছি:
১. রাঙ্গামাটি শহর।
২. কাপ্তাই লেক।
৩. শুভলং ঝর্ণা।
৪. পেদা টিং টিং রেস্টুরেন্ট।
৫. ইয়াং সারেং রেস্টুরেন্ট।
৬. বৌদ্ধ মন্দির।
৭. আদিবাসী গ্রাম ও মার্কেট।
৮. ঝুলন্ত সেতু।
ঢাকা-রাঙ্গামাটি: আগেই বলেছি আমরা বান্দরবান হয়ে রাঙ্গামাটি গিয়েছিলাম। তারপরও আপনার সুবিধার্থে ঢাকা থেকে রাঙ্গামাটি যাওয়া উপায় বলে দিচ্ছি। ভ্রমণ মৌসুম ও সপ্তাহের শেষ কর্ম দিবস হলে সরাসরি রাঙ্গামাটির টিকেট নাও পেতে পারেন। ঢাকা-রাঙ্গামাটি বাস ভাড়া নন-এসি ৬৫০ টাকা। চট্টগ্রাম হয়েও রাঙ্গামাটি যেতে পারবেন। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম নন-এসি বাস ভাড়া ৪২০ টাকা। ইউনিক পরিবহন, হানিফ, শ্যামলী, সেন্টমার্টিন পরিবহন সহ অনেক কোম্পানির বাস এ রুটে চলাচল করে। সরাসরি রাঙ্গামাটির টিকেট না পেলে আপনাকে চট্টগ্রাম হয়েই যেতে হবে। ভাড়া লাগবে ১৩০ টাকা, সময় লাগবে ২.৫-৩ ঘন্টার মতো।
বান্দরবান-রাঙ্গামাটি:
বান্দরবান থেকে প্রতিদিন ৩-৪ টা ট্রিপ রাঙ্গামাটি যায়। প্রথম বাস যায় সকাল সাড়ে ৭টায় আর শেষ বাস বেলা ১১টায়, পারলে অগ্রীম টিকেট কেটে রাখবেন। টিকিটের মূল্য ১২০-১৫০ টাকা (সঠিকটা মনে পড়ছে না)। বেলা ১১টার পর এ রুটে আর কোন বাস পাবেন না। এরপর যেতে চাইলে আপনাকে চাঁন্দের গাড়ী রিজার্ভ নিতে হবে, ভাড়া অনেক বেশী।

20200309_115210

রাঙ্গামাটি শহরের আশেপাশের দর্শনীয় স্থান:
একমাত্র রাজবন বিহার ছাড়া শহরের আশেপাশের সকল স্পটে ঘুরতে রিজার্ভ ইঞ্জিন চালিত নৌকাই একমাত্র ভরসা। কারন আপনাকে ঘুরে বেড়াতে হবে কাপ্তাই হ্রদের বুকে নৌকায় দাপিয়ে। নৌকা ভাড়া জেলা প্রশাসন কর্তৃক বেঁধে দেয়া হলেও অনেক সময় বোট মালিকরা পর্যটকদের ঠকিয়ে থাকে, তাই সাবধান হোন। ছোট, মাঝারি, বড় এই ৩ সাইজের নৌকা পাওয়া যায়। ভাড়া পড়বে ১,৮০০-৩,০০০ টাকা। গ্রুপের সদস্য সংখ্যার উপর ভিত্তি করে নৌকা ভাড়া করুন। আমরা সংখ্যায় কম হলেও একটা বড় ছাদযুক্ত নৌকা সাশ্রয়ী মূল্যেই পেয়েছিলাম। স্পিডবোট ও ভাড়া পাবেন।
স্পটগুলো সম্পর্কে সামান্য ধারণা:
রাঙ্গামাটি শহর: বান্দরবান শহরের চাইতে রাঙ্গামাটি শহরটাকে আমার পছন্দ হয়েছে। কাপ্তাই লেকের ধারে শহরটার অবস্থান।

20200507_172216

কাপ্তাই লেক: কাপ্তাই লেকের স্বচ্ছ নীল জলরাশি আপনাকে মুগ্ধ করবে নিশ্চিত। উপরের স্পটগুলো দেখে শেষ করতে ৬-৭ ঘন্টা সময় লাগে, আর এই পুরোটা সময় আপনাকে নৌকায় করে কাপ্তাইয়ের বুকে ঘুরতে হবে। সাঁতার জানলে হ্রদে গোসল করতে ভুলবেন না, সাঁতার না জানলে নামার দরকার নাই। এমনও শুনেছি, অনেকে নাকি শুধু কাপ্তাই হ্রদে গোসল করার জন্যই রাঙ্গামাটি যায়!

20200507_172251

শুভলং ঝর্ণা: দুইপাশে উঁচু পাহাড়। মাঝখান দিয়ে নৌকা চলছে। একসময় নৌকার মাঝি আপনাকে শুভলং ঝর্ণার কাছে নিয়ে যাবে। শুষ্ক মৌসুমে এই ঝর্ণাতে পানি থাকে না। বর্ষায় আসতে হবে এর আসল রুপ দেখতে চাইলে। দেশের অন্যতম বড় ঝর্ণাটির নিকটে পৌছাতে ৩০ টাকা মূল্যের টিকেট কাটতে হবে।

20200507_172055

পেদা টিং টিং রেস্টুরেন্ট: এই রেস্টুরেন্টটি কাপ্তাই লেকের মাঝখানে এক টিলার উপর অবস্থিত। খাবারের জন্য এর সুনাম যত না ছড়িয়েছে তার চেয়ে বেশী ছড়িয়েছে ব্যতিক্রম নামের জন্য!
ইয়াং সারেং রেস্টুরেন্ট: এই রেস্টুরেন্টটাও কাপ্তাই লেকের মাঝে একটি উঁচু টিলার উপর প্রতিষ্ঠিত। নিরিবিলি প্রাকৃতিক পরিবেশে সময় কাটানোর এক উপযুক্ত জায়গা এটা।
বৌদ্ধ মন্দির: কাপ্তাইয়ের বুকে বিশাল উঁচু পাহাড়ের চূঁড়ায় এই মন্দিরটির অবস্থান। আমরা যখন গিয়েছিলাম তখন এর সংস্কার কাজ চলছিল তাই যাওয়া হয়নি। তবে আরেকটি মন্দির আছে একটু পরেই। অনেক উঁচু একটি মুর্তি রয়েছে এখানে। মন্দিরকে কেন্দ্র করে একটি আদিবাসী মার্কেট গড়ে উঠেছে।
আদিবাসী গ্রাম: লেকের মাঝখানের পাহাড়গুলোতে আদিবাসীদের বসবাস। এমন একটি পাহাড়ে বড় একটি গ্রাম রয়েছে। এখানে আসলে আদিবাসীদের জীবনযাপন সম্পর্কে জানতে পারবেন। আদিবাসীদের হাতে তৈরী পোষাক ও বিভিন্ন সামগ্রী দেখার এবং কেনার সুব্যবস্থা রয়েছে।

20200507_172137

ঝুলন্ত সেতু: রাঙ্গামাটির ঝুলন্ত সেতুর নাম শোনেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। ঝুলন্ত সেতুটি রাঙ্গামাটি জেলার ব্রান্ড। সেতুটিতে উঠতে ২০ টাকা ফি দিতে হয়। লোহার রেলিং ও কাঁঠের পাটাতন ব্যবহার করা হয়েছে এখানে। ভারসাম্য রাখার জন্য ব্যবহার হয়েছে মোটা ক্যাবল।
থাকা-খাওয়া :
রাঙ্গামাটিতে থাকা ও খাওয়ার কোন সমস্যা নেই। থাকার জন্য পাবেন ৫০০-৩,০০০ টাকা মূল্যের রুম। মাঝারী থেকে ভালো মানের অসংখ্য খাবার হোটেল পাবেন। পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর স্থানীয় খাবার খেতে ভুলবেন না। রাঙ্গামাটির পাহাড়ী কলা, আনারস ও পেঁপের সুনাম সর্বত্র। কাপ্তাই লেক থেকে মারা মাছের শুটকি সাথে করে আনতে পারেন।
এবার ফিরতে হবে:
ঢাকায় ফিরতে অগ্রীম টিকেট কেটে রাখুন। তাছাড়া ঝামেলায় পড়তে পারেন। টিকিটের মূল্য নন-এসি ৬৫০ টাকা, এসি ৯০০ টাকা। তবে বিআরটিসির এসি বাস ভাড়া ৭০০ টাকা। হোটেল, রিসোর্ট, নৌকা রিজার্ভ কিংবা গাইডের যোগাযোগ নাম্বার লাগলে জানাতে পারেন, সহযোগীতা করার চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ্।
কিছু জরুরী কথা:
১. ছুঁটির দিন ও মৌসুম এড়িয়ে আসলে খরচ অনেকটাই কমানো সম্ভব।
২. পাহাড়ে বেশীরভাগই আদিবাসীদের বসবাস। তাদের জীবনাচরণ ও সংস্কৃতিকে কোন ভাবেই প্রশ্নবিদ্ধ করবেন না। তাদের অনুভূতিতে আঘাত লাগে এমন কাজ করা থেকে বিরত থাকুন। তাদের সাথে ভালো আচরণ করুন। তারা অনেক ভালো মনের মানুষ ও সাহায্যকারী।
৩. কোন সমস্যায় পড়লে ট্যুরিস্ট পুলিশ কিংবা প্রশাসনের সহযোগীতা নিন। তারা সদা প্রস্তুত সহযোগীতা করতে।
৪.দুর্গম পাহাড়ী এলাকায় টেলিটক ও রবি সিম কার্ড ছাড়া অন্য কোম্পানির নেটওয়ার্ক তেমন পাওয়া যায় না।
৫. পাওয়ার ব্যাংক সঙ্গে আনুন।
৬. অনুনোমদিত কোন জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করবেন না।
৭. পরিবেশ পরিস্কার রাখুন, মনে রাখবেন একজন প্রকৃত পর্যটক ও প্রকৃতি প্রেমী কখনো পরিবেশের ক্ষতি করতে পারে না।
৮. স্যালাইন, প্যারাসিটামল, গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ, স্যাভলন ও মশার অত্যাচার থেকে বাঁচার ক্রিম সাথে করে নিয়ে আসবেন।
ধৈর্য্য নিয়ে পড়ার জন্য ধন্যবাদ। নিজে ভালো থাকুন, প্রাণের দেশটাকে ভালো রাখুন। আল্লাহ হাফেজ।

আলমগীর হোসেন
০৫.০৫.২০২০

বান্দরবানের দর্শনীয় স্থান ভ্রমণ

পাহাড়ের নান্দনিক সৌন্দর্য নিয়ে নতুন করে কিছুই বলার নাই! বাংলাদেশ দেখার মিশনে অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছি, এবার স্থির করলাম পাহাড়ে যাব। শুধু পাহাড় দেখবো আর ঘুরে বেড়াবো! গ্রুপের একজন বললো তাহলে কেওক্রাডং যাওয়া যাক, জায়গাটা আমার মাথাতেও ঘুরপাক খাচ্ছে কিছুদিন যাবৎ, কিন্তু কাউকে বলছিলাম না দুর্গম আর ব্যয়বহুল ট্যুর হবে মনে করে! লুফে নিলাম প্রস্তাব। এখানে কেওক্রাডং অভিযানের কথা উল্লেখ করলাম কারন আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল বগালেক ও কেওক্রাডং পর্বত অভিযান। আমি এ পর্বে বান্দরবান শহর ও এর আশেপাশের স্পটগুলো নিয়ে আলোচনা করবো। বগালেক ও কেওক্রাডং নিয়ে আমার আরেকটি লেখা আছে। যাহোক প্রতিবারের মতো অনেকের ট্যুরমেট হওয়ার কথা থাকলেও এবারও বেশীরভাগই কেটে পড়েছে! শেষমেশ ৬ জনের টিকিট কাটতে পারলাম। ঢাকা থেকে রওনা হয়েছিলাম ৫ মার্চ ২০২০ রাতে। চলুন বিস্তারিত গল্প শুরু করি!
কি কি দেখেছি:
১. বান্দরবান শহর।
২. স্বর্ণ মন্দির।
৩. শৈলপ্রপাত।
৪. নীলাচল পিকনিক স্পট।
৫. মেঘলা অবকাশ কেন্দ্র।
ঢাকা-বান্দরবান: ভ্রমণ মৌসুম ও সপ্তাহের শেষ কর্ম দিবস হওয়ায় আমরা সরাসরি বান্দরবানের টিকেট পাইনি। ঢাকা-বান্দরবান বাস ভাড়া নন-এসি ৬৫০ টাকা।কয়েকটি স্ট্যান্ড ঘুরে অবশেষে সায়দাবাদ থেকে চট্টগ্রামে রাতের বাস টিকেট কাটলাম। চট্টগ্রাম পৌঁছেছিলাম খুব ভোরে। নন-এসি ৪২০ টাকা ভাড়া নিয়েছিল ইউনিক পরিবহন। হানিফ, শ্যামলী, সেন্টমার্টিন পরিবহন সহ কয়েকটি কোম্পানির বাস এ রুটে চলাচল করে। সরাসরি বান্দরবানের টিকেট না পেলে আপনাকে চট্টগ্রাম হয়েই যেতে হবে। সকালের নাস্তা সেরে বহদ্দারহাট আঞ্চলিক বাস টার্মিনাল থেকে বান্দরবানগামী সকাল সাড়ে ৭টার বাস ধরেছিলাম। পূর্বাণী ও পূরবী নামের ২টি কোম্পানির বাস ৩০মিনিট পরপর চট্টগ্রাম-বান্দরবান রুটে চলাচল করে। ভাড়া ১৩০ টাকা, সময় লাগবে ২ ঘন্টার মতো।
বান্দরবানের স্পটগুলো ভ্রমণ:
বান্দরবানে সাধারনত যারা ১ বা ২ দিনের ট্যুরে যায় তারা এই স্পটগুলো ঘুরে বেড়ায়, আর এ রকম ট্যুরিস্টের সংখ্যাই বেশী। স্পটগুলো ঘুরতে ৫-৭ ঘন্টা সময় লাগে। আপনার ভ্রমণ পরিকল্পনা অনুযায়ী সব কিছু করুন। বান্দরবান নেমে ফ্রেশ হয়ে সকালের নাস্তা শেষ করুন। এখন অটো বা চাঁন্দের গাড়ী স্ট্যান্ডে গিয়ে ভাড়া করুন গাড়ী। গ্রুপে সদস্য সংখ্যা বেশী হলে খরচ কম পড়বে। উপরে উল্লেখ করা স্পটগুলো দেখতে চাঁন্দের গাড়ী ভাড়া নেবে ২,০০০-২,৫০০ টাকা। অটো ৫০০-৬০০ টাকা। কঠিন দরদাম করে নিবেন, নইলে ঠকার সম্ভাবনা শত ভাগ! দূরের স্পটগুলো দেখতে চাইলে ভাড়া বাড়বে এটাই স্বাভাবিক।
স্পটগুলো সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত কথা:
বান্দরবান শহর: শহরটা ছিমছাম মনে হয়নি আমার কাছে। তবে শহরটাতে অদ্ভূত এক মায়া আছে, বারবার যাওয়ার টান অনুভব করবেন! দূরের পাহাড় থেকে দেখলে দারুণ লাগে শহরটাকে।

20200308_213607

স্বর্ণ মন্দির: শহরের পাশেই এর অবস্থান। উঁচু একটি পাহাড়ের চূড়ায় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের মন্দিরটির অবস্থান। মন্দিরটির কোথাও স্বর্ণ ব্যবহার করা হয়নি, তবে সোনালী রঙ ব্যবহার করা হয়েছে বলে এটা স্বর্ণ মন্দির নামে পরিচিত পেয়েছে। মন্দিরটিতে প্রবেশ ফি ৫০ টাকা।

20200507_162752

শৈলপ্রপাত: শহর থেকে একটু দূরে বান্দরবান-রুমা সড়কের পাশে এর অবস্থান। আমরা শুষ্ক মৌসুমে গিয়েছিলাম বিধায় এর আসল সৌন্দর্য দেখতে পাইনি। সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসের দিকে এই জলপ্রপাতটির যৌবন দেখতে পাবেন।

20200507_162913

নীলাচল পিকনিক স্পট: শহরের পাশেই উঁচু পাহাড়ের চূঁড়াতে এই পিকনিক স্পট বানানো হয়েছে। জেলা প্রশাসন এর নিয়ন্ত্রন করে। দর্শনার্থী প্রবেশ মূল্য ৫০ টাকা। এখান থেকে বান্দরবান শহর পুরোটা ও স্বর্ণ মন্দির খুব ভালোভাবে দেখা যায়।

20200507_163017

মেঘলা অবকাশ কেন্দ্র: শহরের প্রবেশ মুখেই এই স্পটটি অবস্থিত। জেলা প্রশাসন এই স্পটের নিয়ন্ত্রক। এখানে ঝুলন্ত সেতু, লেক, ক্যাবল কার, মিনি চিড়িয়াখানা, প্যাডেল বোটের ব্যবস্থা আছে। অবকাশ কেন্দ্রের প্রবেশ ফি ৫০ টাকা।

20200507_162834

থাকা-খাওয়া :
বান্দরবানে থাকা ও খাওয়ার কোন সমস্যা নেই। থাকার জন্য পাবেন ৫০০-৩,০০০ টাকা মূল্যের রুম। আমাদের ডাবল বেডের রুমভাড়া লেগেছিল ১,৬০০ টাকা। মাঝারী থেকে ভালো মানের অসংখ্য খাবার হোটেল পাবেন। পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর স্থানীয় খাবার খেতে ভুলবেন না। বান্দরবানের পাহাড়ী কলা, আনারস ও পেঁপের সুনাম সর্বত্র।
এবার ফেরার পালা:
আগেই বলেছি আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল বগালেক ও কেওক্রাডং ট্যুর। ফেরার পথে আমরা এসব দেখেছি। আমরা বান্দরবান থেকে রাঙ্গামাটি গিয়েছিলাম, সেখান থেকেই ঢাকায় ফিরেছি। আপনি বান্দরবান থেকেই ঢাকায় ফিরতে চাইলে অগ্রীম টিকেট কেটে রাখুন। তাছাড়া ঝামেলায় পড়তে পারেন। হোটেল, রিসোর্ট কিংবা গাইডের যোগাযোগ নাম্বার লাগলে জানাতে পারেন, সহযোগীতা করার চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ্।
কিছু জরুরী কথা:
১. ছুঁটির দিন ও মৌসুম এড়িয়ে আসলে খরচ অনেকটাই কমানো সম্ভব।
২. পাহাড়ে বেশীরভাগই আদিবাসীদের বসবাস। তাদের জীবনাচরণ ও সংস্কৃতিকে কোন ভাবেই প্রশ্নবিদ্ধ করবেন না। তাদের অনুভূতিতে আঘাত লাগে এমন কাজ করা থেকে বিরত থাকুন। তাদের সাথে ভালো আচরণ করুন। তারা অনেক ভালো মনের মানুষ ও সাহায্যকারী।
৩. কোন সমস্যায় পড়লে ট্যুরিস্ট পুলিশ কিংবা সেনাবাহিনীর সহযোগীতা নিন। তারা সদা প্রস্তুত সহযোগীতা করতে।
৪.দুর্গম পাহাড়ী এলাকায় টেলিটক ও রবি সিম কার্ড ছাড়া অন্য কোম্পানির নেটওয়ার্ক তেমন পাওয়া যায় না।
৫. পাওয়ার ব্যাংক সঙ্গে আনুন।
৬. অনুনোমদিত কোন জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করবেন না।
৭. পরিবেশ পরিস্কার রাখুন, মনে রাখবেন একজন প্রকৃত পর্যটক ও প্রকৃতি প্রেমী কখনো পরিবেশের ক্ষতি করতে পারে না।
৮. স্যালাইন, প্যারাসিটামল, গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ, স্যাভলন ও মশার অত্যাচার থেকে বাঁচার ক্রিম সাথে করে নিয়ে আসবেন।
ধৈর্য্য নিয়ে পড়ার জন্য ধন্যবাদ। নিজে ভালো থাকুন, প্রাণের দেশটাকে ভালো রাখুন। আল্লাহ হাফেজ।

আলমগীর হোসেন
০৪.০৫.২০২০

বগালেক ও কেওক্রাডং অভিযান

পাহাড়ের নৈসর্গিক সৌন্দর্য মনকে টানে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার! বাংলাদেশ দেখার মিশনে অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছি, এবার স্থির করলাম পাহাড়ে যাব। শুধুই পাহাড় দেখবো আর ট্র্যাকিং করবো! গ্রুপের একজন বললো তাহলে কেওক্রাডং যাওয়া যাক, জায়গাটা আমার মাথাতেও ঘুরপাক খাচ্ছে কিছুদিন যাবৎ, কিন্তু কাউকে বলছিলাম না দুর্গম আর ব্যয়বহুল ট্যুর হবে মনে করে! লুফে নিলাম প্রস্তাব। এক সময় এই কেওক্রাডংকে দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মনে করা হলেও বর্তমানে এটাকে তৃতীয় সর্বোচ্চ ধরা হয়। যাহোক প্রতিবারের মতো অনেকের ট্যুরমেট হওয়ার কথা থাকলেও এবারও বেশীরভাগই কেটে পড়েছে! শেষমেশ ৬ জনের টিকিট কাটতে পারলাম। ঢাকা থেকে রওনা হয়েছিলাম ৫ মার্চ ২০২০ রাতে। চলুন বিস্তারিত গল্প শুরু করি!
কি কি দেখেছি:
১. বান্দরবান শহর।
২. বান্দরবান-রুমা, রুমা-বগালেক পর্যন্ত রোমাঞ্চকর সড়ক যাত্রা।
৩. রুমা উপজেলা সদর।
৪. বগালেক ও পাড়া।
৫. দার্জিলিং পাড়া।
৬. কেওক্রাডং।
৭. চিংড়ী ঝর্ণা।
৮. শৈরাতংপাড়া ভিউ পয়েন্ট।
ঢাকা-বান্দরবান-রুমা: ভ্রমণ মৌসুম ও সপ্তাহের শেষ কর্ম দিবস হওয়ায় আমরা সরাসরি বান্দরবানের টিকেট পাইনি। ঢাকা-বান্দরবান বাস ভাড়া নন-এসি ৬৫০ টাকা।কয়েকটি স্ট্যান্ড ঘুরে অবশেষে সায়দাবাদ থেকে চট্টগ্রামে রাতের বাস টিকেট কাটলাম। চট্টগ্রাম পৌঁছেছিলাম খুব ভোরে। নন-এসি ৪২০ টাকা ভাড়া নিয়েছিল ইউনিক পরিবহন। হানিফ, শ্যামলী, সেন্টমার্টিন পরিবহন সহ কয়েকটি কোম্পানির বাস এ রুটে চলাচল করে। সরাসরি বান্দরবানের টিকেট না পেলে আপনাকে চট্টগ্রাম হয়েই যেতে হবে। সকালের নাস্তা সেরে বহদ্দারহাট আঞ্চলিক বাস টার্মিনাল থেকে বান্দরবানগামী সকাল সাড়ে ৭টার বাস ধরেছিলাম। পূর্বাণী ও পূরবী নামের ২টি কোম্পানির বাস ৩০মিনিট পরপর চট্টগ্রাম-বান্দরবান রুটে চলাচল করে। ভাড়া ১৩০ টাকা, সময় লাগবে ২ ঘন্টার মতো। বান্দরবান নেমেই রওনা হলাম রুমা বাসস্ট্যান্ডের দিকে, অর্থাৎ যেখান থেকে রুমার উদ্দেশ্যে বাস ছাড়ে। অটো ভাড়া জনপ্রতি ১০ টাকা। বান্দরবান থেকে রুমা উপজেলা সদরের দুরত্ব প্রায় ৫০ কিলোমিটারের মতো, সময় লাগবে ৩-৩.৫ ঘন্টা। ভাড়া ১১০ টাকা করে। চাঁন্দের গাড়ী রিজার্ভ নিয়েও যেতে পারবেন তবে খরচ অনেক বেশী পড়বে। পাহাড়ি উঁচুনিচু সরু রাস্তা বেয়ে আমাদের বাস রুমা পৌছালো দুপুর দেড়টার দিকে। রুমা পৌছার আগেই একবার আপনাকে সেনা চেকপোস্টে নেমে গ্রুপের সবার নাম ঠিকানা লিখতে হবে। পাহাড়ের ঢালে ঢালে গড়ে উঠেছে ছোট্ট শহর রুমা। দুরের উঁচু পাহাড় থেকে রুমা শহরটাকে অসাধারণ লাগে।

রুমা-বগালেক: নিয়ম অনুযায়ী প্রথমে গেলাম রুমা গাইড সমিতির অফিসে, সেখান থেকে গাইড ভাড়া করতে হলো আর একটি ফরমে গ্রুপের সকল সদস্যের পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা লিখতে হলো। আমরা ২ রাত ৩ দিন থেকেছিলাম গাইড ভাড়া পড়েছিল ২,৬০০ টাকা, ফরমের শুভেচ্ছা মূল্য ১০০ টাকা। বার-বি-কিউ করে দেওয়ার জন্য কিছু বকশিস দিবেন আপনার গাইডকে। ভাড়া করার পর থেকে সকল কাজে গাইড আপনাকে সর্বোচ্চ সহযোগীতা করবে। এরপর দ্রুত চলে গেলাম রুমা আর্মি ক্যাম্পে, এখান থেকেই কেওক্রাডং যাওয়ার অনুমতি নিতে হয়। অনুমতি পাওয়ার পর স্ট্যান্ডে গিয়ে চাঁন্দের গাড়ী ভাড়া করলাম। এ
রুটে একমাত্র বাহন চাঁন্দের গাড়ী, অন্য কোন গাড়ী এ রুটে চলে না। অন্য গাড়ী চলে না বললে ভুল হবে, বলতে হবে অ্যাডভেঞ্চার বা ড্যাঞ্জারাস রোড হওয়ার কারনে অন্য গাড়ী চলতে পারে না।

20200506_181641

চাঁন্দের গাড়ী, সেনাবাহিনীর জীপ ও কদাচিৎ দুয়েকটা মটর সাইকেল চোখে পড়েছে ৩ দিন অবস্থান করে। আমাদের সমতলের কোন বাইকার ওই রোডে বাইক চালাতে পারবে বলে আমার বিশ্বাসে আসে না! যা হোক বগালেক পর্যন্ত নির্ধারিত চাঁন্দের গাড়ী ভাড়া ২,২০০ টাকা। আমাদের গ্রুপ ছোট হওয়ায় আমরা আরেকটা ছোট গ্রুপকে সাথে নিয়েছিলাম, এতে একটু সাশ্রয় হয়েছিল। আর হ্যাঁ মনে রাখবেন, বান্দরবান থেকে রুমা এবং রুমা থেকে বগালেক এই রুটে বেলা ৩টার পর গাড়ী চলাচল নিষিদ্ধ। দুর্গম এলাকা বিধায় নিরাপত্তার দিক বিবেচনায় ৩টা থেকে সকাল পর্যন্ত কোন গাড়ী চলতে দেয়া হয় না। সাধারনত এক দিনেই কেওক্রাডং পৌছানো সম্ভব হয় না, তাই বগালেকে রাতে থাকতে হয়। রুমা-বগালেক দুরত্ব ১৫ কিলোমিটার, সময় লাগবে ১ ঘন্টার মতো। রুমা ট্যুরিস্ট পুলিশ চেকপোস্টে নেমে নাম ঠিকানা লিখে রওনা হলাম রোমাঞ্চকর এক গাড়ী ভ্রমণে। রুমা থেকে বগালেক পর্যন্ত রাস্তাটা এতটাই রোমাঞ্চকর যা লেখনির বর্ণনায় ফুটিয়ে তোলা অসম্ভব। রাস্তাটা এতটাই উঁচুনিচু যে এটা অনেক সময় ১ কিলোমিটার পর্যন্ত উপরে উঠে গেছে আবার ১ কিলোমিটার পর্যন্ত খাঁড়া নিচে নেমে গেছে! দারুণ এ রাস্তা তৈরী করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। চলার সময় রাস্তার দুই পাশের পাহাড়গুলো এবং এর খাঁজকাটা দৃশ্য আপনার মনের কষ্ট ভুলিয়ে দেবে নিশ্চিত। এভাবে চলতে চলতে কখন বগালেক পৌছাবেন টেরই পাবেন না!

20200506_182323

বগালেক, থাকা-খাওয়া: গাইডকে রুমা থাকতেই বলেছিলাম আমরা দুপুরের খাবার বগালেকে গিয়ে খাব, গাইড সে মোতাবেক বগালেকে ফোনে খাবারের অর্ডার দিয়েছিল। কেওক্রাডং অভিযানে এসে বগালেকে রাত্রিযাপন না করলে অনেক কিছুই মিস করবেন। বগালেক সবচেয়ে উঁচুতে অবস্থিত দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক হ্রদ। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা প্রায় ১,১০০ ফুট, গভীরতা ১০০ ফুটের বেশী। এই লেক সম্পর্কে স্থানীয় আদিবাসীরা নানা কিংবদন্তী বিশ্বাস করে। বগালেক পাড়ায় নেমেই গাইডকে সাথে নিয়ে গেলাম আর্মি ক্যাম্পে সেখানে রিপোর্ট করে এসে হোটেল ভাড়া করলাম।

20200506_181544

রুম ভাড়া রাতপ্রতি ১৫০ টাকা। খাবার হিসেবে পাবেন ভাত, ডিম, মুরগী, ডাল, সবজি আর ভর্তা। একবেলা খেতে খরচ হবে ১২০-১৫০ টাকা। গাইডের থাকা ও খাওয়ার খরচ আমাদেরই বহন করতে হয়েছে। বগালেককে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ছোট্ট একটি গ্রাম, বগালেক পাড়া। ছিমছাম পরিস্কার একটি পাড়া। এখানকার মানুষগুলো সবাই বোম সম্প্রদায়ের। আচরণ ও অতিথিপরায়ণতা অতুলনীয়। রাতের খাওয়া শেষ করে বগালেকের শান বাঁধানো পাড়ে বসে রাতটা উপভোগ করতে পারেন। চর্তুদিকে নির্জন আর মায়াবী এক পরিবেশ।
বগালেক-দার্জিলিং পাড়া-কেওক্রাডং: রাতে সবাই সিদ্ধান্ত নিলাম সকাল ৮ টার মধ্যে ক্যাম্প থেকে অনুমতি নিয়ে কেওক্রাডং রওনা হবো এবং এদিনই বগালেকে ফিরবো এবং এখানেই রাতে থাকবো। সকালের নাস্তা সেরে গেলাম আর্মি ক্যাম্পে, অনুমতি নিয়ে ১০ টাকার বিনিময়ে একটা বাঁশের লাঠি কিনে সবাই হাটা শুরু করলাম কেওক্রাডংয়ের দিকে।

20200506_164543

বগালেক থেকে কেওক্রাডংয়ের দুরত্ব ১৩ কিলোমিটার। পুরোটা পাহাড়ি পথ আমাদের হাঁটতে হবে। চাইলে গাড়ীতেও যেতে পারবেন, তবে গাড়ীতে গেলে আসল মজা পাবেন না। একটু এগোলেই পাকা রাস্তা শেষ, চলতে হবে ঝিরি পথে আর কেনা বাঁশের লাঠিতে রাখতে হবে শরীরের ভারসাম্য। প্রায় ৪ ঘন্টার মতো সময় লাগবে কেওক্রাডং পৌছাতে। পথে কোন দোকান পাবেন না, একটা ঝর্ণা পাওয়া যায় যেখান থেকে খাবার পানি নেয়া যায়। ঝর্ণাটির নাম চিংড়ী ঝর্ণা। বর্ষাকালে ঝর্ণাটি দারুণ রুপ ধারণ করে।

20200506_164513

আমরা শুকনো খাবার ও পানি সাথেই রেখেছিলাম। ব্যাগ সংখ্যা কমিয়ে বগালেকে হোটেলে রেখে গিয়েছিলাম, কারন পাহাড়ি হাটা পথে বাড়তি ওজন বহন করে শক্তি অপচয় করার কোন মানে হয় না। চলার পথে দেখতে পাবেন পাহাড়ের অতুলনীয় নির্জন সৌন্দর্যরূপ। চারিদিকে শুধু পাহাড় আর পাহাড়। পাহাড়ের ফাঁক গলে আসে হিমেল হাওয়া। অদ্ভূত ভালোলাগা কাজ করবে আপনার মনে। উঁচু পাহাড়ের গাঁ ঘেষে হাঁটতে হয়, নিচে দৃষ্টির বাইরের গভীরতা! কিছুদূর চলা একটু বিশ্রাম নেয়া এভাবে চলতে চলতে সাড়ে ১১টার দিকে পৌছে গেলাম দার্জিলিং পাড়া। গাইডকে দিয়ে দার্জিলিং পাড়ায় খাবারের অর্ডার দিলাম, আমরা কেওক্রাডং থেকে ফিরে আসার সময় দুপুরের খাবার খাবো।

20200307_110450

দার্জিলিং পাড়া সম্পর্কে আলাদা করে কিছু বলতেই হবে! দেশের সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন পাহাড়ি গ্রাম দার্জিলিং পাড়া। কোথাও কোন নোংরা,ময়লা,আবর্জনা পাবেন না। এখানে রাত্রিযাপনের ব্যবস্থা আছে, অনেকে দার্জিলিং পাড়ায় রাতে অবস্থান করে। স্থানীয় মানুষগুলোর ব্যবহার অসাধারণ। দার্জিলিং পাড়া থেকে কেওক্রাডং ২ কিলোমিটার দূরে, সময়ের হিসেবে ৩০ মিনিট। দার্জিলিং পাড়া থেকে একদম খাঁড়া উঠতে হয় কেওক্রাডং চূঁড়ায়।

20200506_164029

অবশেষে পৌছালাম কেওক্রাডং চূঁড়ায়, সবার চোখেমুখে বিজয়ের আনন্দ! মনে হচ্ছে সবাই কিছু একটা করে ফেলেছে! কেওক্রাডং চূঁড়াটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩,১০০ ফুট উঁচু। এখান থেকে আশেপাশের পাহাড় ও দূরের পাড়াগুলোর ভালো ভিউ পাওয়া যায়। ছবি তোলার এক পারফেক্ট জায়গা! তবে বিদ্যুৎ সুবিধা পাবেন রুমা বাজার পর্যন্ত। এজন্য সাথে অতিরিক্ত ব্যাটারি কিংবা পাওয়ার ব্যাংক আনতেই হবে! নইলে আপনার ফোন কেওক্রাডং চূঁড়ায় পৌছার আগেই মারা যাবে! কেওক্রাডংয়ে আর্মি ক্যাম্প রয়েছে, রয়েছে একটি হেলিপ্যাড।

সেনাবাহিনী কর্তৃক নির্মিত কটেজে রাত্রিযাপন করার ব্যবস্থাও আছে। কেওক্রাডং থেকে আরো গভীরে যাওয়ার অনুমতি নেই, আপনার আমার নিরাপত্তার স্বার্থেই এই সিদ্ধান্ত। তাই এসব মেনে চলতে হবে। আমরা যখন গিয়েছিলাম তখন চূঁড়াটিতে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ চলছে। ঘন্টা দুয়েক অবস্থান করে আবার নামতে শুরু করলাম। নিরাপত্তার জন্য দুপুর ২-৩ টার পর পর্যটকদের কেওক্রাডং ত্যাগের অনুমতি দেয়া হয় না, তাই সময়ের হিসেবটা রাখতে হবে।

20200506_164743

দার্জিলিং পাড়ায় দুপুরের খাবার খেয়ে আবার রওনা হলাম বগালেকের উদ্দেশ্যে। দার্জিলিং পাড়ার জুম চালের ভাত আর রান্না সবজির কথা কখনো ভুলবো না! দার্জিলিং পাড়ায় সরবরাহ করা ঝর্ণার পানি দেশের সেরা পানি! বগালেক পাড়ায় পৌছাতে পৌছাতে বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা হয়ে গেল। এসে একটু বিশ্রাম নিয়ে পাহাড়ের নির্ভেজাল কলা আর পেঁপে খেয়ে গোসলের জন্য নেমে পড়লাম বগালেকের স্বচ্ছ পানিতে। গাইডকে বলে রুমা বাজার থেকে মুরগী আনালাম বার-বি-কিউ করার জন্য। রাতে বার-বি-কিউ পার্টি শেষে সারাদিনের খাটুনির ধকল নিয়ে এক শান্তির ঘুম দিলাম সবাই।

সকালে উঠে নাস্তা সেরে সেনা ক্যাম্পে রিপোর্ট করলাম। চাঁন্দের গাড়ী ভাড়া করে ফিরলাম রুমা উপজেলা সদরে। ভাগ্যক্রমে বাসের বিরক্তিকর জার্নি থেকে বেঁচে গিয়েছিলাম। কারন রুমা বাজারে বান্দরবানগামী একটা চাঁন্দের গাড়ী পেয়ে ছিলাম। গাড়ীটি মালামাল আনলোড করে রুমা থেকে বান্দরবান ফিরছিল। গাইড কথা বলে অল্প টাকাতেই ম্যানেজ করে দিয়েছিল। আমরা বান্দরবান শহরের আশেপাশের জনপ্রিয় পর্যটন স্থানগুলো যেমন শৈলপ্রপাত, নীলাচল, মেঘলা পর্যটন কেন্দ্র, স্বর্ণ মন্দির সহ কয়েকটি স্পট দেখেছিলাম এবং বান্দরবান থেকে রাঙ্গামাটি গিয়েছিলাম, এসব নিয়ে আরেকটি লেখা লিখবো। আপনি চাইলে এক ট্যুরেই সব এসব জায়গা দেখে ঢাকায় ফিরতে পারেন অথবা সরাসরি বান্দরবান এসে স্ট্যান্ডে গিয়ে ঢাকার টিকেট কেটে সরাসরি চলে আসতে পারেন। আপনার ইচ্ছা। আজীবন মনে রাখার মতো একটা ট্যুর ছিল এই কেওক্রাডং অভিযান। হোটেল, রিসোর্ট কিংবা গাইডের যোগাযোগ নাম্বার লাগলে জানাতে পারেন, সহযোগীতা করতে পারবো ইনশাল্লাহ্।
কিছু জরুরী কথা:
১. পর্যটকদের নিরাপত্তার স্বার্থে বান্দরবান-রুমা, রুমা-বগালেক, বগালেক-কেওক্রাডং পথে বেলা ৩টার পর চলাচলের কোন অনুমতি পাবেন না। গাড়ীও চলে না, অতএব সময় সম্পর্কে সচেতন থাকুন। ফেরার পথেও একই অবস্থা।
২. পাহাড়ে বেশীরভাগই আদিবাসীদের বসবাস। তাদের জীবনাচরণ ও সংস্কৃতিকে কোন ভাবেই প্রশ্নবিদ্ধ করবেন না। তাদের অনুভূতিতে আঘাত লাগে এমন কাজ করা থেকে বিরত থাকুন। তাদের সাথে ভালো আচরণ করুন। তারা অনেক ভালো মনের মানুষ ও সাহায্যকারী।
৩. কোন সমস্যায় পড়লে ট্যুরিস্ট পুলিশ কিংবা সেনাবাহিনীর সহযোগীতা নিন। তারা সদা প্রস্তুত সহযোগীতা করতে।
৪. এসব এলাকায় টেলিটক ও রবি সিম কার্ড ছাড়া অন্য কোম্পানির নেটওয়ার্ক তেমন পাওয়া যায় না।
৫. পাওয়ার ব্যাংক সঙ্গে আনুন।
৬. গাইডকে না জানিয়ে কোন জায়গায় একা যাবেন না, গহীন অরণ্য হওয়ায় বিপদ হতে পারে, সতর্ক থাকুন। অনুনোমদিত কোন জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করবেন না।
৭. পরিবেশ পরিস্কার রাখুন, মনে রাখবেন একজন প্রকৃত পর্যটক ও প্রকৃতি প্রেমী কখনো পরিবেশের ক্ষতি করতে পারে না।
৮. স্যালাইন, প্যারাসিটামল, গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ, স্যাভলন ও মশার অত্যাচার থেকে বাঁচার ক্রিম সাথে করে নিয়ে আসবেন।
ধৈর্য্য নিয়ে পড়ার জন্য ধন্যবাদ। নিজে ভালো থাকুন, প্রাণের দেশটাকে ভালো রাখুন। আল্লাহ হাফেজ।

আলমগীর হোসেন
০১.০৫.২০২০

বগুড়া জেলা ভ্রমণ

আমাদের বাংলাদেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি, এর পাশাপাশি রয়েছে বাঙালীর সুদীর্ঘ সংগ্রামের ইতিহাস। এ অঞ্চলে সংগঠিত হয়েছে অনেক যুদ্ধ , রচিত হয়েছে ইতিহাস।

20190428_175921
শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথা, বগুড়া     ©বাংলার কথা

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর সুদীর্ঘ প্রাচীন ইতিহাস সমৃদ্ধ জেলা বগুড়া। আজ বগুড়া জেলার দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে জানাব এবং এসব স্থান কিভাবে ভ্রমণ করবেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা কেমন, কোথায় থাকবেন, কি খাবেন সব সব কিছু জানাব। চলুন পর্যটন নিয়ে আলোচনার আগে জেলা বগুড়া সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক তথ্য জেনে নেই।

20190428_175834.jpg
শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, ছিলিমপুর, বগুড়া    ©ইন্টারনেট

বগুড়া জেলা:
দেশের প্রাচীনতম জেলা গুলোর বগুড়া একটি। ১৮২১ সালে বগুড়া জেলা প্রতিষ্ঠা লাভ করে। জয়পুরহাট জেলা বগুড়ার অন্তর্ভুক্ত ছিল, ১৯৮৪ সালে প্রশাসনিক পূর্ণবিন্যাসের সময় জয়পুরহাট পৃথক জেলার মর্যাদা লাভ করে। বগুড়া উত্তরবঙ্গের একটি ঐতিহাসিক, শিল্প ও বাণিজ্যিক শহর। বগুড়া রাজশাহী বিভাগের অন্তর্ভূক্ত। বগুড়াকে উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার বলা হয়। এখানে ছোট ও মাঝারি ধরনের প্রচুর শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বগুড়া শহরের আয়তন ৭১.৫৬ বর্গকিলমিটার। বর্তমানে ভোটার বিবেচনায় দেশের সবচেয়ে বড় পৌরসভা এখন বগুড়া। এখানে “শহীদ চান্দু ক্রিকেট স্টেডিয়াম” নামে একটি আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেট স্টেডিয়াম রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, যা উত্তরাঞ্চলের কয়েকটা জেলার মানুষের উন্নত চিকিৎসার অন্যতম আশ্রয়স্থল। জেলার প্রাচীনতম ইতিহাস রয়েছে। বগুড়া জেলা পুন্ড্রবর্ধনের রাজধানী ছিল। যা বর্তমানে মহাস্থানগড় নামে পরিচিত। শহরে থেকে ১১ কিলোমিটার উত্তরে মহাস্থানগড় অবস্থিত, যা একসময় প্রাচীন বাংলার রাজধানী ছিল এবং সেসময় পুণ্ড্রনগর নামে পরিচিত ছিল। মহান মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার এবং জেড ফোর্সের প্রধান, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা মেজর জিয়াউর রহমান বগুড়ার গাবতলীতে জন্মগ্রহণ করেন।

20190428_175809.jpg
ঐতিহাসিক নওয়াববাড়ী, বগুড়া    ©ইনকিলাব

অবস্থান:
বগুড়া শহর করতোয়া নদীর কোল ঘেঁষে অবস্থিত ।করতোয়া নদী উত্তর থেকে দক্ষিণে প্রবাহিত হয়ে বগুড়াকে দুই ভাগে বিভক্ত করেছে । বগুড়ার উত্তরে গাইবান্ধা ও জয়পুরহাট জেলা, পশ্চিমে নওগাঁ জেলা, দক্ষিনে সিরাজগঞ্জ জেলা এবং পুর্বে যমুনা নদী ।
বগুড়া জেলা ১২ টি উপজেলার সমন্বয়ে গঠিত একটি বৃহত্তর প্রাচীন জেলা।
আয়তন:
বগুড়া জেলার আয়তন ২৮৯৫.০১ বর্গকিলোমিটার।
উপজেলা সমূহ:
১.ধুনট
২.শেরপুর
৩.নন্দীগ্রাম
৪.বগুড়া সদর
৫.শিবগঞ্জ
৬.কাহালু
৭.সোনাতলা
৮.সারিয়াকান্দী
৯.শাহজাহানপুর
১০.গাবতলী
১১.দুপচাঁচিয়া
১২.আদমদীঘি।
উল্লেখযোগ্য নদ-নদী:
করতোয়া
বাঙ্গালী
যমুনা
নাগর

20190428_175906.jpg
শহীদ চান্দু ক্রিকেট স্টেডিয়াম   ©বাংলা ট্রিবিউন

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব:
১.প্রফুল্ল চাকী (১৮৮৮-১৯০৮), ব্রিটিশ বিরোধী আন্দলনের নেতা ।
২.মোহাম্মদ আলী (মৃত্যু ১৯৬৯), কূটনীতিক এবং পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ।
৩.মেজর জিয়াউর রহমান (১৯৩৬-১৯৮১) বীর উত্তম, মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার এবং জেড ফোর্সের প্রধান, সাবেক রাষ্ট্রপতি।
৪.খাদেমুল বাশার (১৯৩৫-১৯৭৬), বীর উত্তম, মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার এবং বিমান বাহিনী প্রধান ।
৫.আখতারুজ্জমান ইলিয়াস (১৯৪৩-১৯৯৭), সাহিত্যিক ও গল্পকার ।
৬.গাজিউল হক (১৯২৯-২০০৯), ভাষা সৈনিক।
৭.এম. আর. আখতার মুকুল (১৯২৯-২০০৪), লেখক এবং সাংবাদিক ।
৮.মুশফিকুর রহিম, জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় ।

20190428_174223.jpg
হযরত শাহ্ সুলতান বলখী (র.) এর মাজার শরীফ      ©লেখক

বিখ্যাত খাবার ও পণ্য:
১.দই
২.মহাস্থানের কটকটি
৩.লাল মরিচ
৪.লাল আলু

ফেসবুক.jpg
বিশ্বখ্যাত বগুড়ার দই    ©ফেসবুক

অনেক তথ্য তো দিলাম,এখন চলুন জেনে নেই কি দেখবেন বগুড়ায় আর আসবেনই বা কিভাবে।
দর্শণীয় স্থান:
করতোয়া নদীর কোল ঘেঁষে সুফি, লালন, মারাঠি সংস্কৃতি সমৃদ্ধ বগুড়া জেলাকে বলা হয় উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার। পর্যটন সমৃদ্ধ বগুড়া জেলার দর্শনীয় ভ্রমণ স্থানগুলো-
১.শাহ সুলতান (র.) এর মাজার শরিফ
২.ভাসু বিহার
৩.মহাস্থান জাদুঘর
৪.বেহুলা লখিন্দরের বাসর ঘর
৫.গোবিন্দ ভিটা
৬.নওয়াব প্যালেস
৭.খেরুয়া মসজিদ
৮.পশুরামের প্রাসাদ
৯.ভবানীপুর মন্দির ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।
১০. শহীদ চান্দু ক্রিকেট স্টেডিয়াম (উত্তরাঞ্চলের একমাত্র আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ভেণ্যু)।

20190428_174310.jpg
আমাদের মহাস্থানগড় ভ্রমণ!   ©শিহাব আহমেদ

আপনি ঢাকা থেকে বগুড়ায় সড়ক ও রেল পথ এই দুই উপায়ে আসতে পারবেন।
বিমানবন্দর থাকলেও বর্তমানে এটা বন্ধ আছে। ঢাকা থেকে বগুড়ার সড়ক যোগাযোগ খুবই ভালো, বর্তমানে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক চারলেনে উন্নতীকরণের কাজ চলছে এটা হয়ে গেলে অতি অল্প সময়ে, সহজে বগুড়া আসতে পারবেন।
বাসে ভ্রমণ করলে:
ঢাকার গাবতলী, কল্যানপুর ও মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে হানিফ, শ্যামলী, এর আর ট্রাভেলস, মানিক, শাহ ফতেহ্ আলী, এনা, টি আর সহ অনেক পরিবহন কোম্পানির বাস বগুড়ার উদ্দেশ্যে প্রতিদিন ছেড়ে যায়। এসি, নন-এসি, ডিলাক্স ভাড়া পড়বে ৩০০-১০০০ টাকা পর্যন্ত। একটু কম খরচে যেতে চাইলে টেকনিক্যাল মোড়ের আল মাহমুদ ফিলিং স্টেশন থেকে আর কে ট্রাভেলস এর বাসে চেপে বসতে পারেন, ভাড়া নিবে ২০০ টাকা। সময় লাগবে ৫-৬ ঘন্টা।
ট্রেনে ভ্রমণ করতে চাইলে:
ঢাকা থেকে বগুড়ায় ট্রেনেও আসতে পারবেন, তবে বাস যাত্রার চেয়ে সময় একটু বেশী লাগবে। কারণ ঢাকা থেকে বগুড়ার ট্রেন নাটোর-সান্তাহার স্টেশন হয়ে ঘুর পথে বগুড়ায় প্রবেশ করে ফলে সময় একটু বেশী লাগবে।

20190428_180130
বিশাল এলাকাজুড়ে অবস্থিত মহাস্থানগড় ঘুরে দেখতে হলে আপনাকে এভাবে মাঝে মাঝে বিশ্রাম নিতে হবে   ©শিহাব আহমেদ

কোথায় থাকবেন:
বগুড়া শহরেই অবস্থান করে পুরো বগুড়া ঘুরে দেখতে পারবেন। বগুড়ায় থাকা সংক্রান্ত কোন ঝামেলাতেই আপনাকে পড়তে হবে না। উত্তরাঞ্চলের চার তারকা ও পাঁচ তারকা মানের দুটি হোটেল শুধু বগুড়াতেই রয়েছে। রয়েছে পর্যটন মোটেল, জেলা সার্কিট হাউজ, জেলা পরিষদ ডাকবাংলো। সার্কিট হাউজ ও ডাকবাংলোতে থাকতে হলে আপনাকে অগ্রীম অনুমতি সাথে আনতে হবে। তাছাড়া বেসরকারি ও ব্যক্তি উদ্দ্যোগে প্রতিষ্ঠিত উন্নতমানের বেশ কিছু আবাসিক হোটেল রয়েছে বগুড়ায়। ২০০-৮০০০ টাকায় এসব হোটেলে রাত্রিযাপন করতে পারবেন।
খাবেন কি! :
বগুড়ায় ভালো মানের অনেক খাবার হোটেল রয়েছে। হোটেল আকবরিয়ার সুনাম দেশজুড়ে। বগুড়ার আসলেন আর দই খেলেন না তা হতে পারে না। বগুড়ার দইয়ের সুনাম বিশ্বময়। দই ও লাল মরিচ জেলার ব্র্যান্ড। তাছাড়া বগুড়ার মিস্টি, মহাস্থানের কটকটি পরখ করতে ভুলবেন না। এসব হোটেলে সকাল, দুপুর ও রাতের খাবার আরাম করে খেতে পারবেন।
চলুন এবার ঘুরে বেড়াই!
মহাস্থান ঘুরে দেখতে হলে;
মহাস্থানগড় মূলত বগুড়া শহর থেকে ১১ কিলোমিটার উত্তরে শিবগঞ্জ উপজেলার বিশাল এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। ভাসু বিহার, পরশুরামে প্রাসাদ, বেহুলা লখিন্দরের বাসর ঘর, গোবিন্দ ভিটা, মহাস্থানগড় জাদুঘর, শাহ্ সুলতান (র.) এর মাজার শরিফ দেখতে চাইলে প্রথমে আপনাকে শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথায় আসতে হবে। অটোরিক্সা বা সিএনজি রিজার্ভ করে নিয়ে উপরের স্থান গুলো দেখতে পারবেন। শহরের অন্যান্য জায়গা থেকেও সিএনজি বা অটোরিক্সা রিজার্ভ করতে পারবেন। লোকসংখ্যা কম থাকলে বা বাজেটে ঘাটতি থাকলে রিজার্ভ না করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে গাড়ি ধরেও ভ্রমণ করতে পারবেন। এখানে আপনি প্রাচীন বাংলার রাজধানী পুন্ড্রবর্ধণ নগরীর অনেক ধ্বংসাবশেষ সহ নানান স্থাপনা দেখতে পাবেন। পুরো একটা দিন চলে যাবে উপরে উল্লেখ করা স্থান গুলো দেখতে।

20190428_180102.jpg
বাংলাদেশ মসলা গবেষনা কেন্দ্র, শিবগঞ্জ, বগুড়া    ©নাজমুল ইসলাম

নওয়াব প্যালেস মিউজিয়াম:
এটা সাতমাথা থেকে দুই মিনিটের হাটা পথ, সাতমাথা থেকে পূর্ব দিকে শহীদ খোকন পৌর পার্ক এবং সার্কিট হাউজের পাশেই নবাববাড়ী রোডে প্যালেস মিউজিয়ামটির অবস্থান। ৫০ টাকায় টিকিট কেটে আপনি ঐতিহ্যবাহী নবাব পরিবার এবং পাকিস্থানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মাদ আলী সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন। বিনোদনের জন্য বেশ কিছু আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে, রয়েছে আদিম গুহা!
খেরুয়া মসজিদ ও ভবানীপুর মন্দির:
খেরুয়া মসজিদ বর্তমানে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সম্পদ। মসজিদটি বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলায় অবস্থিত। বগুড়া শহর থেকে উপজেলাটির অবস্থান ২০ কিলোমিটার দক্ষিনে, আসতে পারবেন বাসে করে। সময় লাগবে ৪০ মিনিটের মতো, সাতমাথা থেকেই বাস পাবেন। শেরপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে রিক্সা ভাড়া করে নিয়ে ঘুরে দেখে আসতে পারবেন ঐতিহাসিক খেরুয়া মসজিদ ।
ভবানীপুর মন্দিরটাও শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নে অবস্থিত, এখানে যেতে পারবেন সিএনজি বা অটোরিক্সা ভাড়া করে।

20190428_180035
বাংলাদেশ মসলা গবেষনা কেন্দ্রের ভিতরে রাস্তা   ©লেখক

হাতে সময় থাকলে অবশ্যই আরো যা দেখার চেষ্টা করবেন!
১.বাংলাদেশের অন্যতম বড় এবং শীর্ষস্থানীয় কলেজ সরকারী আযিযুল হক কলেজ ক্যাম্পাস। এর অবস্থান পুরান বগুড়ায়। সাতমাথা থেকে সিএনজিতে পশ্চিমে ৫ টাকার পথ।
২. প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মেজর জিয়াউর রহমানের পৈত্রিক নিবাস। এটা জেলার গাবতলী উপজেলার বাগবাটি গ্রামে অবস্থিত। যেতে পারবেন সিএনজিতে, সিএনজি পাবেন শহরের ইয়াকুবিয়া মোড় থেকে।
৩.বাংলাদেশ মসলা গবেষনা কেন্দ্র। প্রতিষ্ঠানটি শিবগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত। মহাস্থানগড় জাদুঘর থেকে অল্প দুরত্বের পথ, কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে ভিতরে প্রবেশ করতে পারবেন।
৪.প্রেম যমুনার ঘাট ও কালীতলা ঘাট। ঘাট দুটোর অবস্থান জেলার সারিয়াকান্দী উপজেলায়। আসতে পারবেন বাস বা সিএনজিতে। এখানে বসে বসে আপনি যমুনার ভয়ঙ্কর সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন।

কারেন্ট নিউজ.কম
প্রেম যমুনার ঘাট, কালীতলা, সারিয়াকান্দী, বগুড়া     ©কারেন্ট নিউজ.কম

এবার ফেরার পালা:
ঢাকায় ফিরতে চাইলে চলে যান শহরের ঠনঠনিয়া বাসস্ট্যান্ডে। টিকিট কেটে উঠে পড়ুন বাসে! ট্রেনে যেতে চাইলে আপনাকে স্টেশনে যেতে হবে!
বগুড়ার সাথে প্রায় সকল জেলার বাস চলাচল ভালো, কিছু কিছু জেলায় সরাসরি বাস না চললেও লিংক সার্ভিস ঠিকই পাওয়া যায়। শহরের চার মাথা থেকে বিভিন্ন জেলার আন্ত:সার্ভিস বাস ধরতে পারবেন।
মনে রাখবেনঃ
প্রত্যেকটা পর্যটন এলাকা আমাদের জাতীয় সম্পদ। অতএব এর ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না। পরিবেশ পরিস্কার রাখুন। বেড়াতে গিয়ে সব কিছু চাহিদামতো রাজকীয় পাবেন এ চিন্তা এড়িয়ে চলুন! প্রয়োজনে স্থানীয় মানুষের সহযোগীতা নিন, স্থানীয় মানুষদের সাথে ভালো ব্যবহার করুন। বিপদে পড়লে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ বা ট্যুরিস্ট পুলিশের সহযোগীতা নিন। ভ্রমন করুন, দেশকে জানুন।
আপনার ভ্রমন হোক নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব।
*সময়ের সাথে সব ধরনের ভাড়া, গাড়ির সময় ইত্যাদি পরিবর্তন হতে পারে।
*একটা কথা বারবারই বলি, তা হলো যেখানেই ভ্রমনে যান না কেন ভাড়া, খাবার এ সব বিষয়ে দরদাম করে নিবেন। নইলে ঠকার সম্ভাবনা শতভাগ!
*নিজের সুবিধা মতো ভ্রমণ পরিকল্পনা সাজান এবং সেভাবেই চলুন।
*লেখকের পূর্বানুমতি ছাড়া পুরো বা কোন অংশ এডিট কিংবা কপি করা অনুচিত।
*কোন মতামত বা সংশোধনী কিংবা জিঙ্গাসা থাকলে কমেন্ট করতে পারেন।
*তথ্যগত সহায়তা ইন্টারনেট, উইকিপিডিয়া এবং জেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট থেকে নেয়া হয়েছে।
©কপিরাইট: আলমগীর হোসেন
১০.০৩.২০১৯
ধুনট, বগুড়া

 

 

শরীয়তপুর জেলা ভ্রমণ

অন্যান্য জেলার মতোই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আঁধার শরীয়তপুর জেলা। আজ আলোচনা করবো শরীয়তপুর জেলার দর্শনীয় স্থান নিয়ে। জানাব কি দেখবেন শরীয়তপুরে, কিভাবে যাবেন, কোথায় থাকবেন, কি খাবেন ইত্যাদি। তবে তার আগে চলুন জেলা শরীয়তপুর সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক তথ্য জেনে নেয়া যাক।

20190426_212251.jpg
টিন ও কাঁঠের তৈরী শরীয়তপুরের দৃষ্টিনন্দন বাড়ী       ©লেখক

শরীয়তপুর জেলা:
শরীয়তপুর জেলা পূর্বে বৃহত্তর বিক্রমপুরের অংশ ছিল। ১৮৬৯ সালে প্রশাসনের সুবিধার্থে এটাকে বাকেরগঞ্জ জেলার অংশ করা হয়। কিন্তু এ অঞ্চলের জনগণের আন্দোলনের মুখে ১৮৭৩ সালে এ অঞ্চলকে মাদারীপুর মহকুমার অন্তর্গত করে ফরিদপুর জেলার অংশ হিসেবে গ্রহণ করা হয়। সবশেষ প্রশাসনিক পূর্ণবিন্যাসের সময় ১৯৮৪ সালের ১লা মার্চ শরীয়তপুরকে জেলার মর্যাদা প্রদান করা হয়। শরীয়তপুর বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা। বর্তমানে ছয়টি উপজেলার সমন্বয়ে শরিয়তপুর জেলার কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

আয়তন:
শরীয়তপুর জেলার আয়তন ১১৮১.৫৩ বর্গকিলোমিটার।
অবস্থান:
এই জেলার উত্তরে মুন্সীগঞ্জ জেলা, দক্ষিণে বরিশাল জেলা, পুর্বে চাঁদপুর জেলা এবং পশ্চিমে মাদারিপুর জেলা। শরীয়তপুর মূলত চর এলাকা।
উপজেলা সমূহ:
১.জাজিরা
২.শরীয়তপুর সদর
৩.গোসাইরহাট
৪.ডামুড্যা
৫.ভেদরগঞ্জ
৬.নড়িয়া
উল্লেখযোগ্য নদ-নদী:
শরীয়তপুর জেলা কীর্তিনাশা নদীর তীরে অবস্থিত।
অন্যান্য নদী গুলো;
১.পদ্মা
২.মেঘনা
৩.দামুদিয়া
৪.আরিয়াল খাঁ
আবার এসব নদীর অসংখ্য শাখা নদীও রয়েছে।

manasha-bari-500x305.jpg
মানসা বাড়ী, শরিয়তপুর    ©ইন্টারনেট

দর্শনীয় স্থান:
১.সুরেশ্বর দরবার শরীফ
২.মডার্ন ফ্যান্টাসি কিংডম
৩.বুড়ির হাট মসজিদ ও
বুড়ির হাট মুন্সী বাড়ী
৪.রুদ্রকর মঠ
৫. মহিষারের দীঘি
৬.হাটুরিয়া জমিদার বাড়ি
৭.রাম সাধুর আশ্রম
৮.মানসিংহের বাড়ী।

20190426_212353.jpg
কাঁঠালবাড়ী ফেরীঘাট, শিবচর, মাদারীপুর     ©লেখক

কিভাবে আসবেন?
ঢাকা থেকে শরীয়তপুরে আসতে আপাতত সড়ক ও নৌপথই একমাত্র ভরসা। তবে পদ্মা সেতুর কাজ হয়ে গেলে এবং সেতুতে রেললাইন যুক্ত হলে ট্রেনেও আসতে পারবেন শরীয়তপুর। ঢাকা থেকে মাওয়া-কাঁঠালবাড়ী ফেরীঘাট হয়ে বাসে করে শরিয়তপুর আসতে পারবেন, সময় তিন থেকে সাড়ে তিন ঘন্টা লাগবে। আবার ভেঙ্গে ভেঙ্গেও শরীয়তপুর আসতে পারবেন। মুন্সিগঞ্জের মাওয়া (শিমুলিয়া ঘাট) পর্যন্ত বাসে এসে সেখান থেকে ফেরী/লঞ্চ/স্পীডবোটে করে প্রমত্তা পদ্মা নদী পার হয়ে মাদারীপুর জেলার শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ফেরীঘাট আসবেন। সেখান থেকে শরীয়তপুরগামী বাসে চড়তে পারবেন, আমরা এ রুটটাই ব্যবহার করেছিলাম। মিরপুর ১২ থেকে স্বাধীন, গাবতলী থেকে বসুমতী, আব্দুল্লাহপুর থেকে প্রচেষ্টা সহ বেশ কিছু বাস মাওয়া ঘাটে আসে, ভাড়া নেবে ৯০-১২০ টাকা। মাওয়া ঘাট পর্যন্ত সময় লাগবে ১ ঘন্টার মতো।

20190426_212324.jpg
চলার জন্য ভাড়ায় মটর সাইকেল পাবেন    ©লেখক

থাকার ব্যবস্থা:
শরীয়তপুর শহরে থাকার জন্য বেশ কয়েকটি ভালো মানের হোটেল পাবেন, কম বাজেটের হোটেলও পাবেন। খরচ পড়বে ২০০-১০০০ টাকার মতো। উপজেলা সদরগুলোতে থাকার ব্যবস্থা আছে কিনা জানা নেই। তাছাড়া রয়েছে জেলা সার্কিট হাউজ, জেলা পরিষদ ডাকবাংলো, এসব জায়গায় থাকতে আপনার আগাম অনুমতি সাথে আনতে হবে।
খাবার ব্যবস্থা:
খাবার বিষয়ক কোন ঝামেলা নেই। জেলার সবখানেই সাধ্যের মধ্যে সকাল,দুপুর,রাতের জন্য ভালো এবং স্বাস্থ্যকর খাবার পাবেন।

20190426_212550.jpg
পদ্মা সেতু প্রকল্প, জাজিরা প্রান্ত, শরীয়তপুর      ©লেখক

চলুন এবার ঘুরে বেড়াই!
সে অর্থে তেমন জনপ্রিয় কোন ভ্রমণ এলাকা শরীয়তপুরে নেই, তবে যথেষ্ট প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত জেলা এটা। পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত গতিতে চলছে, সেতু হয়ে গেলে এলাকার পর্যটন নতুন মাত্রা পাবে এমন আশা করাই যায়। ঘোরা শুরু করুন তবে…..
সুরেশ্বর দরবার শরীফ:
নড়িয়া উপজেলায় অবস্থিত।
মডার্ন ফ্যান্টাসি কিংডম:
নড়িয়ার কেদারপুর ইউনিয়নের কলুকাঠি গ্রামে এটি অবস্থিত। এখানে রয়েছে দেশের সবচেয়ে বড় মাছের এ্যাকুরিয়াম। তাছাড়া এখানে চিড়িয়াখানা সহ শিশুদের বিনোদনের বিভিন্ন ব্যবস্থা রয়েছে। শরীয়তপুর জেলার একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে এটা সকলের কাছে পরিচিত।
বুড়ির হাট মসজিদ ও বুড়ির হাট মুন্সী বাড়ী:
দুটোরই অবস্থান ডামুড্যা উপজেলায়।
রুদ্রকর মঠ:
অবস্থান শরীয়তপুর সদর উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নে।
মহিষারের দীঘি :
দক্ষিণ বিক্রমপুর।
হাটুরিয়া জমিদার বাড়ি:
গোসাইরহাট উপজেলায় জমিদার বাড়িটি অবস্থিত।
রাম সাধুর আশ্রম:
নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নে এর অবস্থান।
মানসিংহের বাড়ী:
নড়িয়া উপজেলার ফতেজঙ্গপুরে অবস্থিত।

20190426_212818.png
সার্ভিস এরিয়া ও নির্মানাধীণ ক্যান্টনমেন্ট এলাকা, পদ্মা সেতু প্রকল্প, জাজিরা    ©লেখক

এবার ফেরার পালা:
ঢাকায় ফিরতে শরীয়তপুর জেলা সদরের বাসস্ট্যান্ডে চলে আসুন, অথবা উপজেলা সদর থেকে বাস চলে কিনা তা স্থানীয়দের কাছ থেকে জেনে নিন। টিকেট করে বাসে উঠে পড়ুন, রাতের সর্বশেষ বাস কখন ছাড়ে আগেই জেনে নিন। চাইলে শরীয়তপুর থেকে গাড়ী বদল করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে আসতে পারেন। কাঁঠালবাড়ী-মাওয়া ঘাটে সারারাত ফেরি সার্ভিস চালু থাকে (যদি আবহাওয়া অনুকুলে থাকে)। তবে লঞ্চ এবং স্পিডবোট সার্ভিস সন্ধ্যা ৭-৮ পর্যন্ত চালু থাকে সম্ভবত।
মনে রাখবেনঃ
প্রত্যেকটা পর্যটন এলাকা আমাদের জাতীয় সম্পদ। অতএব এর ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না। পরিবেশ পরিস্কার রাখুন। বেড়াতে গিয়ে সব কিছু চাহিদামতো রাজকীয় পাবেন এ চিন্তা এড়িয়ে চলুন! প্রয়োজনে স্থানীয় মানুষের সহযোগীতা নিন,স্থানীয় মানুষদের সাথে ভালো ব্যবহার করুন। বিপদে পড়লে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ বা ট্যুরিস্ট পুলিশের সহযোগীতা নিন। ভ্রমন করুন, দেশকে জানুন।
আপনার ভ্রমন হোক নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব।
*আমাদের ভ্রমনের সময়ের আলোকে লেখা। অতএব সময়ের সাথে সব ধরনের ভাড়া, গাড়ির সময় ইত্যাদি পরিবর্তন হতে পারে।
*নদী এলাকা পার হতে হয়, তাই হঠাৎ প্রতিকূল আবহাওয়া হলে সমস্যায় পড়তে পারেন এজন্য আবহাওয়া বার্তা জেনে নিয়ে ভ্রমণ পরিকল্পনা সাজান।
*একটা কথা বারবারই বলি, তা হলো যেখানেই ভ্রমনে যান না কেন ভাড়া, খাবার এ সব বিষয়ে দরদাম করে নিবেন। নইলে ঠকার সম্ভাবনা শতভাগ!
*নিজের সুবিধা মতো ভ্রমণ পরিকল্পনা সাজান এবং সেভাবেই চলুন।
*লেখকের পূর্বানুমতি ছাড়া পুরো বা কোন অংশ এডিট কিংবা কপি করা অনুচিত।
*কোন মতামত বা সংশোধনী কিংবা জিঙ্গাসা থাকলে কমেন্ট করতে পারেন।
*তথ্যগত সহায়তা ইন্টারনেট, উইকিপিডিয়া এবং জেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট থেকে নেয়া হয়েছে।
©কপিরাইট: আলমগীর হোসেন
TM:March 2019
TD:06 (0 night 1 day)
১৪.০৩.২০১৯
ধুনট, বগুড়া

গোপালগঞ্জ জেলা ভ্রমণ

শস্য-শ্যামলা আমাদের মাতৃভূমির আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে রয়েছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। এমনই এক জেলা গোপালগঞ্জ। প্রকৃতির মায়া আর ইতিহাসের মিশেলে গোপালগঞ্জ জেলা এক কথায় অসাধারন! গোপালগঞ্জ জেলার দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে আলোচনা করবো, জানাবো কিভাবে যাবেন, কোথায় থাকবেন তবে তার আগে জেলা গোপালগঞ্জ সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশাসনিক তথ্য জেনে নেই।

20190426_212107.png
বঙ্গবন্ধুর সমাধী সৌধে প্রবেশের প্রধান গেইট সংলগ্ন রাস্তা       ©লেখক

গোপালগঞ্জ জেলা:
১৮৭২ সালে মাদারীপুর মহকুমায় গোপালগঞ্জ নামক একটি থানা গঠিত হয়। ১৮৭৩ সালে মাদারীপুর মহকুমাকে বাকেরগঞ্জ জেলা থেকে পৃথক করে ফরিদপুর জেলার সঙ্গে যুক্ত করা হয়। ১৯০৯ সালে মাদারীপুর মহকুমাকে ভেঙ্গে গোপালগঞ্জ মহকুমা গঠন করা হয়। গোপালগঞ্জ এবং কোটালীপাড়া থানার সঙ্গে ফরিদপুর মহকুমার মুকসুদপুর থানাকে নবগঠিত গোপালগঞ্জ মহকুমার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ১৯২১ সালে গোপালগঞ্জ শহরের মানে উন্নীত হয়। আদমশুমারি অনুযায়ী তখন গোপালগঞ্জ শহরের লোকসংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৪ শত ৭৮ জন মাত্র। ১৯৭৪ সালে গোপালগঞ্জ সদর থানাকে ভেঙ্গে টুঙ্গিপাড়া নামক একটি থানা গঠন করা হয়। ১৯৮৪ সালের ১ ফেব্রুয়ারি হুসেইন মুহাম্মাদ এরশাদ সরকার কর্তৃক প্রশাসনিক পূর্ণবিন্যাসের সময় গোপালগঞ্জ মহকুমাকে জেলায় উন্নীত করা হয়। এই গোপালগঞ্জেই জন্মগ্রহন করেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাঙালীর অবিসংবাদিত নেতা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুর সমাধী জেলার টুঙ্গিপাড়ায় অবস্থিত।
বর্তমানে ৫টি উপজেলার সমন্বয়ে গোপালগঞ্জ জেলার কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।
অবস্থান:
গোপালগঞ্জ জেলার উত্তরে ফরিদপুর জেলা, দক্ষিণে পিরোজপুর ও বাগেরহাট জেলা, পূর্বে মাদারীপুর ও বরিশাল জেলা এবং পশ্চিমে নড়াইল জেলা অবস্থিত ।
আয়তন:
গোপালগঞ্জ জেলার আয়তন ১৪৮৯.৯২ বর্গ কিলোমিটার।
জেলার উপজেলা সমূহ:
১.টুঙ্গিপাড়া
২.কাশিয়ানী
৩.গোপালগঞ্জ সদর
৪.মুকসুদপুর
৫.কোটালিপাড়া

 

dc-gopalgonj-jobs20160606075900.jpg
জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, গোপালগঞ্জ      ©জাগো নিউজ

উল্লেখযোগ্য নদীসমূহ:
অনেক নদী সমৃদ্ধ জেলা গোপালগঞ্জ;
১.মধুমতি
২.বাঘিয়ার নদী
৩.ঘাঘর
৪.পুরাতন কুমার
৫.বিলরুট ক্যানেল (কৃত্তিমভাবে তৈরি করা হয় ১৯১১ খ্রিষ্টাব্দে)
৬.কালিগঙ্গা
৭.টঙ্গীখাল
৮.দিগনার
৯.বাগদা
১০.কুশিয়ারা
১১.মধুপুর
১২.শৈলদহ
১৩.ছন্দা
দর্শনীয় স্থান:
১.জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধী সৌধ কমপ্লেক্স।
২.ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়ি।
৩.জমিদার গিরীশ চন্দ্র সেনের বাড়ী।
৪.অন্যন্যা চন্দ্র ঘাট, গোপালগঞ্জ সদর।
৫.উলপুর জমিদার বাড়ী।
৬.বধ্যভূমি স্মৃতি সৌধ, গোপালগঞ্জ সদর।
৭.বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।

ujani.jpg
উজানী জমিদারবাড়ী, মুকসুদপুর, গোপালগঞ্জ      ©মুকসুদপুর প্রতিদিন

কিভাবে আসবেন?
ঢাকা থেকে দুই পথে আপনি গোপালগঞ্জে আসতে পারবেন। রেলপথে আসতে পারবেন টুঙ্গিপাড়া পর্যন্ত। নতুন রেল লাইন নির্মান করা হয়েছে রাজবাড়ি থেকে গোপালগঞ্জ শহর হয়ে টুঙ্গিপাড়া পর্যন্ত। তাছাড়া সড়ক পথে আসতে পারবেন দুইটা ওয়েতে। মিরপুর ১২ থেকে স্বাধীন, গাবতলী থেকে বসুমতী, আব্দুল্লাহপুর থেকে প্রচেষ্টা সহ বেশ কিছু বাস মাওয়া ঘাট যায়, ভাড়া ৯০-১২০ টাকা। ঢাকা থেকে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া-কাঁঠালবাড়ী ফেরীঘাটে আসবেন। সেখান থেকে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস বাস পাবেন,অন্য বাস কোম্পানির বাসও পাবেন। কোন কোন বাসে উঠলে নামতে হবে গোপালগঞ্জে, আর কোন কোন বাস যায় টুঙ্গিপাড়া। ভাড়া ২০০-২৫০ এর মতো, সময় লাগবে ৩-৪ ঘন্টা। ঢাকা থেকে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসে আসলে ভাড়া ৩৫০ টাকা পড়বে। মটর সাইকেল ভাড়াও পাবেন কাঁঠালবাড়ী ঘাটে, ভাড়া নিবে ১২০০-১৫০০ টাকা। সময় লাগবে ২ঘন্টার মতো। সময় স্বল্পতার কারনে আমরা মটর সাইকেল রিজার্ভ নিয়েছিলাম। আবার পাটুরিয়া ফেরীঘাট দিয়ে ফরিদপুর হয়ে গোপালগঞ্জে আসতে পারবেন। সাধারণত গোপালগঞ্জের মানুষ এই রুটটাই বেশী ব্যবহার করে, ভাড়া পড়বে ৩৫০-৪০০ টাকা। পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুতগতিতে চলছে, পদ্মা সেতু হয়ে গেলে মাওয়া-জাজিরা রুটটাই বেশী ব্যবহৃত হবে। ঢাকার ছোট-বড় কয়েকটি স্ট্যান্ডে বাস পাবেন। চাইলে আগে পাটুরিয়া যেতে পারেন, তারপর লঞ্চে ফরিদপুর পৌছে গোপালগঞ্জের বাস ধরতে পারেন।

20190426_212925.png
সমাধী সৌধ কমপ্লেক্সের জাদুঘরের অংশ বিশেষ      ©লেখক

কোথায় থাকবেন?
গোপালগঞ্জ শহরে থাকার জন্য বেশ কয়েকটি ভালো মানের হোটেল পাবেন, কম বাজেটের হোটেলও পাবেন। খরচ পড়বে ২০০-১৮০০ টাকার মতো। চাইলে টুঙ্গিপাড়াতেও থাকতে পারেন, থাকার ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। তাছাড়া রয়েছে জেলা সার্কিট হাউজ, জেলা পরিষদ ডাকবাংলো, এখানে থাকতে আপনার আগাম অনুমতি সাথে আনতে হবে।
খাবার ব্যবস্থা:
খাবার সংক্রান্ত কোন ঝামেলা নেই। জেলার সর্বত্র সাধ্যের মধ্যে ভালো এবং স্বাস্থ্যকর খাবার পাবেন।
অভ্যন্তরীণ যানবাহন:
বাস, অটোরিক্সা, ম্যাক্সি, অটোভ্যান, রিক্সা, মটর সাইকেল ইত্যাদি বাহনে প্রয়োজন মেটাতে পারবেন।
চলুন এবার ঘুরিফিরি!

20190426_211846.jpg
বঙ্গবন্ধুর সমাধী সৌধের পাশে দাড়িয়ে  ©নাজমুল ইসলাম

অনেক বকবক তো করলাম, চলুন এবার দর্শনীয় স্থানগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানি….
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধী সৌধ কমপ্লেক্স:
গোপালগঞ্জ হতে বাসে চড়ে টুঙ্গীপাড়া বাসস্ট্যান্ডে নেমে ভ্যান/অটোরিক্সা/ম্যাক্সিতে চড়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধী সৌধ কমপ্লেক্সে আসতে পারবেন। এখানে আপনি বঙ্গবন্ধুর কবর জিয়ারত করতে পারবেন। দেখতে পারবেন বঙ্গবন্ধুর পৈত্রিক বাড়ী। বঙ্গবন্ধুর শৈশবের স্মৃতিবিজড়িত অনেক স্থান দেখতে পারবেন। এখানে একটি জাদুঘর ও লাইব্রেরী রয়েছে। সুবিশাল লাইব্রেরী থেকে জ্ঞান লাভের সুযোগ রয়েছে। জাদুঘরে বঙ্গবন্ধুর বেশ কিছু দুর্লভ ছবি রয়েছে, রয়েছে তথ্য সমৃদ্ধ অনেক কিছু।

20190426_211655.png
 সমাধী সৌধ কমপ্লেক্সের লাইব্রেরী অংশ      ©লেখক

ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়ি:
উপজেলা সদর হতে তিলছড়া বাসস্ট্যান্ড হয়ে পূর্ব দিকে বাইপাস সড়ক দিয়ে খাগড়াবাড়ীয়া-আড়ুয়াকান্দি হয়ে ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়ী যেতে পারবেন।

20190426_211928.jpg
বঙ্গবন্ধুর সমাধী সৌধের পাশে দাড়িয়ে        ©লেখক

জমিদার গিরীশ চন্দ্র সেনের বাড়ী:
ভাটিয়াপাড়া থেকে এক কিলোমিটার উত্তরে ছোট কাচা রাস্তা ধরে পূর্ব দিকে গেলেই জমিদার গিরীশ চন্দ্র সেনের বাড়ী।
অন্যন্যা চন্দ্র ঘাট:
উপজেলা পরিষদ, গোপালগঞ্জ সদর।
উলপুর জমিদার বাড়ী:
গোপালগঞ্জের কুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস যোগে উলপুর যেতে হবে।
বধ্যভূমি স্মৃতি সৌধ:
উপজেলা পরিষদ, গোপালগঞ্জ সদর।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস:
ছাত্রছাত্রী বিবেচনায় দেশের সবচেয়ে বড় বিশ্ববিদ্যালয় এটা। গোপালগঞ্জ জেলা সদরেই এর অবস্থান। মনোরম এই ক্যাম্পাস ঘুরে দেখতে পারেন।

20190426_213219.png
বঙ্গবন্ধুর সমাধী চত্বরের অংশ বিশেষ     ©লেখক

এবার ফেরার পালা:
ঢাকায় ফিরতে গোপালগঞ্জ জেলা সদরের বাসস্ট্যান্ডে চলে আসুন। এরপর টিকেট করে বাসে উঠে পড়ুন, রাতের সর্বশেষ বাস কখন ছাড়ে আগেই জেনে নিন। ট্রেনেও ফিরতে পারবেন। কাঁঠালবাড়ী-মাওয়া ঘাটে সারারাত ফেরি সার্ভিস চালু থাকে (যদি আবহাওয়া অনুকুলে থাকে)। তবে লঞ্চ এবং স্পিডবোট সার্ভিস সন্ধ্যা ৭-৮ পর্যন্ত চলে সম্ভবত।
মনে রাখবেনঃ
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধী সৌধের তথা কবরস্থানের পবিত্রতা রক্ষা করুন, এটা আমাদের সবার দায়িত্ব। প্রত্যেকটা পর্যটন এলাকা আমাদের জাতীয় সম্পদ। অতএব এর ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না। পরিবেশ পরিস্কার রাখুন। বেড়াতে গিয়ে সব কিছু চাহিদামতো রাজকীয় পাবেন এ চিন্তা এড়িয়ে চলুন! প্রয়োজনে স্থানীয় মানুষের সহযোগীতা নিন,স্থানীয় মানুষদের সাথে ভালো ব্যবহার করুন। বিপদে পড়লে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ বা ট্যুরিস্ট পুলিশের সহযোগীতা নিন। ভ্রমন করুন, দেশকে জানুন।
আপনার ভ্রমন হোক নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব।
*আমাদের ভ্রমনের সময়ের আলোকে লেখা। অতএব সময়ের সাথে সব ধরনের ভাড়া, গাড়ির সময় ইত্যাদি পরিবর্তন হতে পারে।
*নদী এলাকা পার হতে হয়, তাই হঠাৎ প্রতিকূল আবহাওয়া হলে সমস্যায় পড়তে পারেন এজন্য আবহাওয়া বার্তা জেনে নিয়ে ভ্রমন পরিকল্পনা সাজান।
*একটা কথা বারবারই বলি, তা হলো যেখানেই ভ্রমনে যান না কেন ভাড়া, খাবার এ সব বিষয়ে দরদাম করে নিবেন। নইলে ঠকার সম্ভাবনা শতভাগ!
*নিজের সুবিধা মতো ভ্রমণ পরিকল্পনা সাজান এবং সেভাবেই চলুন।
*লেখকের পূর্বানুমতি ছাড়া পুরো বা কোন অংশ এডিট কিংবা কপি করা অনুচিত।
*কোন মতামত বা সংশোধনী কিংবা জিঙ্গাসা থাকলে কমেন্ট করতে পারেন।
*তথ্যগত সহায়তা ইন্টারনেট, উইকিপিডিয়া এবং জেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট থেকে নেয়া হয়েছে।
©কপিরাইট: আলমগীর হোসেন
TM:March 2019
TD:06 (0 night 1 day)
১২.০৩.২০১৯
ধুনট, বগুড়া